Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে কীটনাশকমুক্ত আম

এবারই প্রথম চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ ৮ জেলায় ফ্রুট ব্যাগিং প্রযুক্তি ব্যবহারে  নিরাপদ, বিষমুক্ত ও রপ্তানিযোগ্য ৮/১০ মেঃ টন  আম  উত্পাদন করতে যাচ্ছেন আম ব্যবসায়ী ও আম চাষিরা চাঁপাইনবাবগঞ্জ আম গবেষণা কেন্দ্রে। গবেষক ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো:শরফউদ্দিন জানান, গত বছর চীনের একটি কোম্পানি আমাদের গবেষণার জন্য কিছু ব্যাগ প্রদান করে। সে ব্যাগ দিয়ে আমরা আমাদের গবেষণা কেন্দ্রে  ফ্রুট ব্যাগিং প্রযুক্তি ব্যবহার করে ভালো সাফল্য পেয়েছি। তার মতে, বিভিন্ন ধরনের কীটনাশক স্প্রে করার চেয়ে এ পদ্ধতিতে খরচ অনেক কম এবং বিষমুক্ত আম উত্পাদন সম্ভব। এর ফলে আমচাষি ও আম ব্যবসায়ীরা বেশি লাভবান হবেন। 

 

ড. শরফউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশে মাঠ পর্যায়ে ফ্রুট ব্যাগিং প্রযুক্তি জনপ্রিয় করে তুলতে শুধু চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় ৩/৫ টাকা মূল্যের প্রায় ৫০ হাজার ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহার করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, রাজশাহী, নাটোর, পাবনা, গোপালগঞ্জ, রাঙ্গামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি এ সাত জেলায় আরো ৫০ হাজার ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহার করেছে আম ব্যবসায়ী ও আমচাষিরা।

 

বেলেপুকুর এলাকার এ বছর ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহারকারী জিএম রহমান পলাশ বলেন, প্রায় ৪ হাজার আমে ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহার করেছি এবং আরো ব্যবহার করার চেষ্টা করছি। এ ব্যাগ ব্যবহারের ফলে আর কোন কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে না। তাছাড়া আমের দামও বেশি পাবো বলে আশা করছি। তিনি এ ব্যাপারে সরকারিভাবে উদ্যোগের প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। রাজশাহীর কোর্ট এলাকার হড়গ্রাম গ্রামের নতুনপাড়ার মাওলানা বেরার উদ্দিন জানান, আমি প্রথমদিকে আমবাগানে স্প্রে করলেও ফ্রুট ব্যাগের খবর পেয়ে ২ হাজার ফ্রুট ব্যাগ ক্রয় করে ৩০টি গাছের আমে লাগিয়েছি। আম ছিদ্রকারী পোকার-মাছির আক্রমণ থেকে আমকে রক্ষা করার ক্ষেত্রে ভালো ফলাফল পেলে আগামীতে আরো বেশিসংখ্যাক ব্যাগ ব্যবহার করবো। ফ্রুট ব্যাগ প্রযুক্তি ব্যবহারকারী নওগাঁ জেলার জাহিদুল ইসলাম জানান, এ প্রযুক্তির খবর পেয়ে নাটোরের নলডাঙ্গা থানার পশ্চিম মাধনগর কাজীপাড়া এলাকায় নিজস্ব ৩ বিঘা আমবাগানে ৩ হাজার ৮শ’ টি ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহার করেছি। কীটনাশক ব্যবহারের চেয়ে ফ্রুট ব্যাগ ব্যবহারে খরচ কম।

 

 ড. শরফউদ্দিন জানান, গত বছর  আম ব্যবসায়ী ও চাষিরা  পর্যাপ্ত পরিমাণ ফ্রুট ব্যাগ সংগ্রহ করতে না পারলেও এবছর পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় ব্যাগ ক্রয় করতে কোন অসুবিধা হবে না। তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, এ প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে কমপক্ষে    ৮-১০ টন রঙিন, ভালো মানসম্পন্ন শতভাগ রোগ ও পোকা-মাকড়মুক্ত আম উত্পাদিত হবে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
মাটি ও আবহাওয়ার কারণে মেহেরপুরের সুস্বাদু হিমসাগর আম এবারও দেশের বাইরে ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) ভুক্ত দেশগুলোতে রফতানি হতে যাচ্ছে।   গত বছর কীটনাশক মুক্ত আম প্রথম বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করার ফলে এ অঞ্চলের আমচাষীদের মধ্যে উৎসাহ দেখা দেয়। গত বছর ১২ মেট্রিক টন আম ইউরোপিয়ান ...
চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে সারাদেশের ন্যায় মত চাঁপাইনবাবগঞ্জেও টানা ৭দিন ধরে প্রবল বর্ষনের কারণে আম ব্যবসায়ী ও আম চাষীদের মাথায় হাত পড়েছে। টানা বর্ষনের কারনে আম ব্যবসায়ীরা গাছ থেকে আম পাড়তে পারছেন না। অন্যদিকে গাছে পাকা আম নিয়েও বিপাকে পড়েছে আম চাষী ও ব্যবসায়ীরা। ফলে দুর্যোগপূর্ণ ...
আমের মৌসুম বাড়ছে আরও এক মাস  কোনো রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার না করে আম পাকা প্রায় এক মাস বিলম্বিত করার প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন এক উদ্ভিদবিজ্ঞানী আম পাকা শুরু হলে আর ধরে রাখা যায় না। তখন বাজারে আমের সরবরাহ বেড়ে যায়। যেকোনো দামেই বেচে দিতে হয়। তাতে কোনো কোনো বছর চাষির উৎপাদন ...
আম রফতানির মাধ্যমে চাষিদের মুনাফা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এজন্য দেশে বাণিজ্যিকভাবে আমের উৎপাদন, কেমিক্যালমুক্ত পরিচর্যা এবং রফতানি বাড়াতে সরকার বিশেষ পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। সে লক্ষ্যে গাছে মুকুল আসা থেকে শুরু করে ফল পরিপক্বতা অর্জন, আহরণ, গুদামজাত, পরিবহন এবং ...
বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে আছে বিভিন্ন বয়সী অনেক পুরনো গাছ। এর কোন কোনটি ২০০-৩০০ বছরেরও বেশি বয়সী। আবার কোনটির বয়স তার চেয়েও বেশি। তেমনই ঠাকুরগাঁওয়ের একটি আমগাছের কথা সেদিন জানতে পারলাম ফেসবুকে একজনের পোষ্ট থেকে। একটি আমগাছ যার বয়স নাকি ২০০ বছরেরও ...
রীষ্মের এই দিনে অনেকেরই পছন্দ আম।এই আমের আছে আবার বিভিন্ন ধরণের নাম।কত রকমের যে আম আছে এই যেমনঃ ল্যাংড়া,ফজলি,গুটি আম,হিমসাগর,গোপালভোগ,মোহনভোগ,ক্ষীরশাপাত, কাঁচামিঠা কালীভোগ আরও কত কি! কিন্তু এবারে বাজারে এসেছে এক নতুন নামের আর তার নাম 'বঙ্গবন্ধু'। নতুন নামের এই ফলটি দেখা ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২