Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

কোটচাঁদপুরে জৈব ও ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ, কর্মসংস্থান হয়েছে ২ হাজার মানুষের

ঝিনাইদহে দিন দিন বাড়ছে আমচাষের আবাদ। স্বাস্থ্য ঝুঁকিবিহীন জৈব আর ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম চাষ করছে এই এলাকার আমচাষিরা। এ বছর ফলন ভালো হওয়ার আশায় খুশি তারা। জেলা থেকে বিদেশে রপ্তানি আর আম সংরক্ষণের দাবি চাষিদের। জানা যায়, ২০১১ সালে ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর উপজেলায় আমের আবাদি জমির পরিমাণ ছিল মাত্র ২১০ হেক্টর। ওই বছর থেকে মুজিবনগর সমন্বিত কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কোটচাঁদপুর উপজেলার সলেমানপুর গ্রামে আমের প্রদর্শনী শুরু হয়। ২ বছর যেতে না যেতেই এর সুফল পেতে শুরু করে কৃষক।

বর্তমানে ওই উপজেলায় ৭ হেক্টর জমিতে চাষ করা হচ্ছে আম্রপালি, ল্যাংড়া, ফজলি, তিলে বোম্বাই, হাঁড়িভাঙ্গা, হিমসাগরসহ সুস্বাদু আম। সলেমানপুর এলাকার প্রায় ৪ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে আবাদ হচ্ছে আমের। আবহাওয়া অনুক‚লে থাকা আর কৃষি বিভাগের প্রযুক্তিগত পরামর্শে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার আমবাগানগুলোতে আমের বাম্পার ফলন বলে আশা চাষিদের। চাষিরা সেক্স ফেরোমন ও ব্যাগিং পদ্ধতিতে এ বছর শুরু করে আমের পরিচর্যা। রোদ, বৃষ্টি বা পোকামাকড়ের আক্রমণ থেকে রক্ষা করার জন্য কার্বন ব্যাগ পরিয়ে রাখা হচ্ছে। এ ছাড়াও আমের পোকা-মাকড় দূর করার জন্য ব্যবহার করা হচ্ছে সেক্স ফেরোমন পদ্ধতি। জৈব পদ্ধতিতে আমচাষের কারণে গুণগত মান ও গুণ ২টি বাড়বে বলে মনে করেন কৃষক। এতে লাভবান হবেন আমচাষি, বাগান মালিক ও আম ব্যবসায়ীরা।

কোটচাঁদপুর উপজেলার ৭ হাজার পরিবার আম চাষের সঙ্গে সম্পৃক্ত। সেই সঙ্গে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হয়েছে ২ হাজার মানুষের। আমচাষি শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রথমে তিনি ৪ বিঘা জমিতে প্রদর্শনী প্লট করেন তিনি। ৩ বছর পর তিনি সেই বাগান থেকে আম সংগ্রহ শুরু করেন। অন্যান্য ফসলের চেয়ে লাভ বেশি হওয়ায় তিনি বর্তমানে ২০ বিঘা জমিতে আমের চাষ করছেন। আমচাষি আবদুল আজিজ বলেন, প্রথমে ৩ একর জমিতে আম চাষ শুরু করেন। প্রথমে খরচ একটু বেশি হলেও বর্তমানে বিঘাপ্রতি মাত্র ১০ হাজার টাকা ব্যয় হচ্ছে। আর সেখান থেকে আয় হচ্ছে ৩০ হাজার টাকা। যে কারণে তিনি অন্যান্য ফসল আবাদ বাদ দিয়ে আমচাষ করছেন।

আবুল হোসেন নামের অন্য কৃষক বলেন, আমচাষ লাভবান করার জন্য বর্তমানে জৈব পদ্ধতিতে আমচাষ করা হচ্ছে। প্রতিটি গাছের ডালে সেক্স ফেরোমেন দেয়া হচ্ছে। কোনো প্রকার রাসায়নিক বা ওষুধ আম গাছে দেয়া হয় না। এ ছাড়াও এ বছর ব্যাগিং পদ্ধতি শুরু করা হয়েছে। এর মাধ্যমে আম পোকামাকড়ের হাত থেকে রক্ষা পাবে। সেই সঙ্গে আমের স্বাদ ও গুণ বজায় থাকবে। তবে এখান থেকে আবাদকৃত আম বিদেশে রপ্তানি করার দাবি তাদের। আমচাষি বাবুল সর্দার বলেন, আম মৌসুমি ফল। অন্যান্য ফসলের মতো যদি আম সংরক্ষণের কোনো ব্যবস্থা সরকার গ্রহণ করত তা হলে আমচাষিরা আরো লাভবনা হতো। আম ব্যবসায়ী ওমর ফারুক বলেন, তিনি দীর্ঘদিন ধরে এ এলাকা থেকে আম নিয়ে ঢাকায় পাঠান। এখানকার আম স্বাদে ও গুণে ভালো হওয়ার কারণে বেশি লাভ করতে পারেন।

কোটচাঁদপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শেখ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, কোটচাঁদপুর উপজেলায় ৭শ হেক্টর জমিতে প্রায় ২০ হাজার মেট্টিক টন আম উৎপাদন হবে। যা জেলার চাহিদা মিটিয়ে পাঠানো হবে দেশের বিভিন্ন স্থানে। উপজেলা থেকে আবাদকৃত আম যদি দেশের বাইরে রপ্তানি করা যেত তাহলে আমচাষিরা আরো আগ্রহী হয়ে উঠত। এ ছাড়া কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে চাষিদের সহায়তা করা হচ্ছে। যেকোনো সমস্যায় মাঠ পর্যায়ে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তারা পরামর্শ দিয়ে আসছেন।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
জৈষ্ঠ্য মাসের প্রথম সপ্তাহে জেলার হিমসাগর আম গেল ইউরোপে। আর এর মধ্য দিয়েই আম রপ্তানিতে কৃষি বিভাগের প্রচেষ্টা তৃতীয়বারের মতো সাফল্যের মুখ দেখলো। সোমবার রাতে রপ্তানির প্রথম চালানেই জেলার দেবহাটা উপজেলার ছয়জন চাষী ও সদর উপজেলার তিনজন চাষীর বাগানের হিমসাগর আম পাঠানো হলো ...
ফলের রাজা আম। আর আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ। দেশের সর্ববৃহত্তর অর্থনৈতিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যলয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। এ জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল আম। বর্তমানে জেলা সবখানে চলছে বাগান পরিচর্যা ও বেচা-কেনা। বর্তমানে জেলার ২৪ হাজার ৪৭০ হেক্টর আম বাগানে ৯০ ভাগ মুকুল এসেছে। ...
আমের মৌসুম বাড়ছে আরও এক মাস  কোনো রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার না করে আম পাকা প্রায় এক মাস বিলম্বিত করার প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন এক উদ্ভিদবিজ্ঞানী আম পাকা শুরু হলে আর ধরে রাখা যায় না। তখন বাজারে আমের সরবরাহ বেড়ে যায়। যেকোনো দামেই বেচে দিতে হয়। তাতে কোনো কোনো বছর চাষির উৎপাদন ...
আম রফতানির মাধ্যমে চাষিদের মুনাফা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এজন্য দেশে বাণিজ্যিকভাবে আমের উৎপাদন, কেমিক্যালমুক্ত পরিচর্যা এবং রফতানি বাড়াতে সরকার বিশেষ পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। সে লক্ষ্যে গাছে মুকুল আসা থেকে শুরু করে ফল পরিপক্বতা অর্জন, আহরণ, গুদামজাত, পরিবহন এবং ...
মৌসুমি ফল দিয়ে কর্তা ব্যক্তিদের খুশি করে স্বার্থ উদ্ধারের পদ্ধতি অনেক দিনের। বর্তমানে এই খুশি বিষয়টি আদায় করতে নগদ অর্থ খরচ করতে হলেও ফল থেরাপি ধরে রেখেছে অনেকেই। এর একটি হল মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের জন্য নিয়মিত ...
রীষ্মের এই দিনে অনেকেরই পছন্দ আম।এই আমের আছে আবার বিভিন্ন ধরণের নাম।কত রকমের যে আম আছে এই যেমনঃ ল্যাংড়া,ফজলি,গুটি আম,হিমসাগর,গোপালভোগ,মোহনভোগ,ক্ষীরশাপাত, কাঁচামিঠা কালীভোগ আরও কত কি! কিন্তু এবারে বাজারে এসেছে এক নতুন নামের আর তার নাম 'বঙ্গবন্ধু'। নতুন নামের এই ফলটি দেখা ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২