Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

ফরমালিনমুক্ত আম বাজারে

সংশয় বা আতঙ্ক কেটে গেছে। এবারও আমে ফরমালিন নেই। বিক্রি হচ্ছে দেদারছে। রাজধানীসহ দেশের কয়েকটি বিভাগীয় ও জেলা শহরে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অএন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই) এর পরীক্ষায় বাজারে আসা আমে ফরমালিন পাওয়া যায়নি। গতকাল শনিবার ঢাকার কয়েকটি বাজারে অভিযান চালিয়ে রাসায়নিক পরীক্ষায় আমে ফরমালিন পাওয়া যায়নি বলে জানান বিএসটিআইয়ের সহকারী পরিচালক রিয়াজুল হক। বিশেষজ্ঞদের মতে, এটা দেশের জন্য দেশের মানুষের জন্য সুখবর। বিশেষ করে যারা বিষাক্ত রাসায়নিকের ভয়ে মৌসুমী ফল খাওয়া ছেড়ে দিয়েছিলেন তাদের জন্য খুবই ভালো খবর এটি। ভেজালবিরোধী অভিযানের এক সময়ের আলোচিত ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আল-আমীন এ প্রসঙ্গে ইনকিলাবকে বলেন, এখন কৃষক থেকে শুরু করে পাইকারী-খুচরা বিক্রেতা ও ক্রেতা সবাই সচেতন। নিজেদের স্বার্থের কথা বিবেচনা করে কেউই আর ফলে ফরমালিন দেয়ার পক্ষে নন। এটাকে ভেজালবিরোধী অভিযানের সুফল উল্লেখ করে তিনি বলেন, এভাবেই একদিন সবকিছুই ভেজালমুক্ত হবে। রাজধানীর কয়েকটি এলাকায় ফলের বাজার ঘুরে বিক্রেতাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবার ভরা মৌসুমেও ফরমালিন মিশ্রিত আম আসছে না। এমনকি পুরান ঢাকার পাইকারী আড়তেও ফরমালিন দেয়ার প্রবণতা নেই। বাদামতলীর পাইকারী ব্যবসায়ী আজিম উদ্দিন জানান, আগে র‌্যাব-পুলিশের কঠোর নজরদারির মধ্যেও ফরমালিন মেশানো ঠেকানো যেতো না। এখন খুব একটা নজরদারি নেই। তারপরেও কেউই ফরমালিন মেশাচ্ছে বলে তাঁর জানা নেই। আরেক পাইকারী ব্যবসায়ী রুহুল আমিন বলেন, আমরা সচেতন হয়েছি। কেউ আমে বা মৌসুমী অন্য কোনো ফলে ফরমালিন বা কার্বাইড দিচ্ছে এমন খবর শুনলেই মার্কেটের ব্যবসায়ীরাই মিলে প্রতিবাদ করে, বাধা দেয়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশের বৃহত্তম আম উৎপাদন কেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং সাতক্ষীরায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আম পাড়ার সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছিল। একটা নির্দিষ্ট সময়ের আগে ব্যবসায়ীরা যাতে গাছ থেকে আম না পারেন সেজন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হয়েছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার বাগানগুলোতে গত ২৫ মে পর্যন্ত আম পাড়া নিষেধ ছিল। জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার আম চাষী মোবারক হোসেন টেলিফোনে বলেন, ফুল আসার পর কীটপতঙ্গ থেকে রক্ষার জন্য আম গাছে কিছু ওষুধ দেয়া হয়। কীট মরে গেলে আর কোনো প্রকার ওষুধ ব্যবহার করা হয় না। তিনি বলেন, আগে বাগানেই ফরমালিন বা কার্বাইড ব্যবহার করা হতো একথা সত্য। এখন তা হয় না। প্রশাসন এখন অনেক কঠোর। আমে মুকুল আসার পর থেকেই জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মনিটরিং করা হয়। র‌্যাবও মনিটরিং করছে। র‌্যাবের গোয়েন্দা বিভাগের লোকজন সব সময় খোঁজ খবর নিয়েছে। এর মধ্যে ফরমালিন মেশানোর সুযোগ নাই। চাঁপাইনবাবগঞ্জের আরেক পাইকারী ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম বলেন, এখন উৎপাদক থেকে শুরু করে ক্রেতা পর্যন্ত সবাই সতর্ক। কেউই চায় না আমে বিষাক্ত ফরমালিন মেশাতে। এই সচেতনতাই আমকে ‘বিষমুক্ত’ করেছে। ঢাকার কয়েকজন ফল ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, মৌসুমের আগেই ভারতীয় আম বাজারে আসে। সে সব আমে ফরমালিন মিশ্রিত থাকে। ফরমালিনের বদনামটা আসে ভারত থেকে আমদানিকৃত আম থেকেই। যাত্রাবাড়ীর ফল বিক্রেতা সায়মন বলেন, ভারত থেকে আনা আমগুলো অনেক দিন বাজারে রাখতে হয় বলে সেগুলোতে ফরমালিন মেশানো থাকে। বাজারে প্রথম আসার কারণে ক্রেতাদের আগ্রহ থাকে বেশি। দামও থাকে অনেক বেশি। বেশি দাম দিয়ে ক্রেতারা ফরমালিনযুক্ত আমগুলো কেনার পর সেগুলো কেনার পর ‘বদনাম’ হয় দেশী আমের। মীরহাজিরবাগের ব্যবসায়ী আলম বলেন, দেশী আমে ফরমালিন দেয়ার প্রয়োজন হয় না। দেশী আম মোটামুটি ‘পোক্ত’ হলেই বাজারে আসে। ওই আম পাকতেও দেরি হয়। বিক্রিতে সময় পাওয়া যায়। একটানা ১০/১৫দিন রাখলেও ঝুড়ির আম পচে না। গত কয়েক দিন আগে চট্টগ্রামের বিভিন্ন বাজারে আমের রাসায়নিকের উপস্থিতি পরীক্ষা করে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাংবাদিকদের জানান, বাজারের আমে কোনো প্রকার রাসায়নিক পদার্থ বা ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায় নি। ভ্রাম্যমাণ আদালতের ওই টিম অভিযানকালে আম, আপেল, আঙ্গুর এবং মাল্টার ২০টি নমুনা সংগ্রহ করে জেলা প্রশাসন ও বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই)। এসব নমুনা পরীক্ষায় মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর ফরমালিনের উপস্থিতি পাওয়া যায়নি। সংশ্লিষ্টদের মতে, এবার মৌসুমের আগে থেকেই ফলে ফরমালিন ও কার্বাইড ব্যবহারের বিরুদ্ধে জেলা প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের সুফল এটি। আতঙ্কে মৌসুমী ফল খাওয়া ছেড়ে দেয়া মানুষের জন্য এটি অনেক বড় সুখবর। এ প্রসঙ্গে বিএসটিআইয়ের সহকারী পরিচালক রিয়াজুল হক গতকাল ইনকিলাবকে বলেন, সারাদেশে বিএসটিআইয়ের ৬টি অফিসের মাধ্যমে ভেজালবিরোধী অভিযান ও মনিটরিং অব্যাহত রয়েছে। এ কারণে ফলে ফরমালিন দেয়ার প্রবণতা কমেছে। তবে বিএসটিআইয়ের এই কর্মকর্তা মনে করেন, অভিযানের পাশাপাশি মানুষের মধ্যে যে সচেতনতার সৃষ্টি হয়েছে সেটা অনেকটাই ফলপ্রসূ হয়েছে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
এক আমের দাম ৩৩ হাজার টাকা! কে কিনেছে এই আম এবং ঘটনাটা কী?- ভাবা যায়! একটি আমের দাম ৩৩ হাজার টাকা। তাও আবার আমের রাজধানী-খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে। ঘটনাটা কী! শিবগঞ্জ উপজেলার দুলর্ভপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রাজিবুল ইসলাম রাজু জানান, শনিবার সকালে দুলর্ভপুর ইউনিয়নের ...
ফলের রাজা আম। আর আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ। দেশের সর্ববৃহত্তর অর্থনৈতিক ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যলয় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা। এ জেলার প্রধান অর্থকরী ফসল আম। বর্তমানে জেলা সবখানে চলছে বাগান পরিচর্যা ও বেচা-কেনা। বর্তমানে জেলার ২৪ হাজার ৪৭০ হেক্টর আম বাগানে ৯০ ভাগ মুকুল এসেছে। ...
আমাদের দেশে উৎপাদিত মোট আমের ২০ থেকে ৩০ শতাংশ সংগ্রহোত্তর পর্যায়ে নষ্ট হয়। প্রধানত বোঁটা পচা ও অ্যানথ্রাকনোজ রোগের কারণে আম নষ্ট হয়। আম সংগ্রহকালীন ভাঙা বা কাটা বোঁটা থেকে কষ বেরিয়ে ফলত্বকে দৃষ্টিকটু দাগ পড়ে । ফলত্বকে নানা রকম রোগজীবাণুও লেগে থাকতে পারে এবং লেগে থাকা কষ ...
সারা দেশে যখন ‘ফরমালিন’ বিষযুক্ত আমসহ সব ধরনের ফল নিয়ে মানুষের মধ্যে আতংক বিরাজ করছে, তখন বরগুনা জেলার অনেক সচেতন মানুষ বিষমুক্ত ফল খাওয়ার আশায় ভিড় জমাচ্ছেন মজিদ বিশ্বাসের আমের বাগানে। জেলার আমতলী উপজেলার আঠারগাছিয়া ইউনিয়নে শাখারিয়া-গোলবুনিয়া গ্রামে মজিদ বিশ্বাসের ২ একরের ...
এখন বৈশাখ মাস গাছে গাছে ভরা আছে মধু ফল আমে। কিন্তু মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে একটি আম গাছে সাধারণ নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটিয়ে ডালছাড়া গাছের মধ্যখানে ধরেছে কয়েকশত আম। আর ব্যতিক্রমী ভাবে ধরা এ আম দেখেতে শিশুসহ অসংখ্য লোকের ভির হচ্ছে সেখানে। এ ঘটনাটি ঘটেছে শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়নের ...
ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নের আগুনেরচরে একটি আম গাছের গোড়া থেকে গজিয়ে উঠেছে হাতসদৃশ মসজাতীয় উদ্ভিদ বা ছত্রাক। ওই ছত্রাককে অলৌকিক হাতের উত্থান এবং ওই হাত ভেজানো পানি খেলে যেকোন রোগ ভাল হয় বলে অপপ্রচার করছে স্থানীয় ভ- চক্র। আর ওই ভ-ামির ফাঁদে পা দিয়ে প্রতিদিন প্রতারিত হচ্ছেন ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২