Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

জুনে বাজারে আসছে হাড়িভাঙ্গা আম

আগামী জুন মাসের মাঝামাঝি সময় রংপুরের ঐতিহ্য সুস্বাদু ও বিখ্যাত আশবিহীন হাঁড়িভাঙা আমবাজারে পুরোদমে বেচা-বিক্রি শুরু হবে। এবার রংপুরে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়েছে এক হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে। গত বছর প্রতি হেক্টরে ফলন হয়েছিল নয় দশমিক চার মেট্রিক টন। তবে এবার ফলন কম হতে পারে। চাষিদের দাবি কৃষি বিভাগের সু্ষ্ঠু মনিটরিং থাকলে রংপুরের অর্থনীতিতে এই আম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।

 

 

রংপুর ছাড়াও গাইবান্ধা জেলার সুন্দরগঞ্জ ও সাদুল্যাপুর উপজেলা, কুড়িগ্রামের সদর ও রাজারহাট, লালমনিরহাটের সদর ও কালিগঞ্জ এবং নীলফামারীর সদর ও সৈয়দপুরে ছড়িয়ে গেছে হাড়িভাঙার চাষ। জনপ্রিয়তার কারণে এসব জেলায় দিনদিন হাড়িভাঙা আমের চাষ বাড়ছে। তবে এবার রংপুরে আমের অফ ইয়ার হওয়ায় ফলন কম হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষিবিভাগ।

 

 

এই হাড়িভাঙ্গা আমের জন্ম নিয়ে রয়েছে চমকপ্রদ ঘটনা। প্রায়এক’শ বছর আগে এই আমের যাত্রা শুরু হলেও ব্যাপক সম্প্রসারণ শুরু হয়েছে নব্বই’র দশক থেকে। হাড়িভাঙ্গা আমের নামকরণ প্রসঙ্গে মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের তেকানি গ্রামের আমজাদ হোসেন জানান, তার বাবা নফেল উদ্দিন প্রায় ৮০ বছর আগে মাসিমপুর এলাকার কুমোর বাড়ির পাশে জঙ্গল থেকে একটি আম গাছ আনেন। বাড়ির পাশে ভাঙ্গা হাড়ির টুকরোর মাঝখানে গাছটি জন্মেছিল বলে গাছটির নামকরণ করা হয় হাড়িভাঙ্গা। তখন থেকেই এ অঞ্চলে হাড়িভাঙ্গা আমের যাত্রা শুরু হয়। বর্তমানে তার চারটি আমের বাগান রয়েছে। কিন্তু বৈরী আবহাওয়ার কারণে এবার আমের ফলন কম হতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

 

হাড়িভাঙ্গা আমের সম্প্রসারক আব্দুছ ছালাম জানান, প্রায় শত বছর আগে মিঠাপুকুরের বালুয়া মাসুমপুর এলাকার জমিদার ছিলেন তাজবাহাদুর সিংহ। তিনি খুব সৌখিন মানুষ ছিলেন। তার একটি ফলের বাগান ছিল। এই বাগানে বিভিন্ন প্রজাতির ফল ছিল। পেশাদার কিছু আম ব্যবসায়ী তার বাগান থেকে আম নিয়ে পদাগঞ্জ হাটে বিক্রি করতো। সেখান থেকে হয়তো নফেল উদ্দিন এই হাড়ি ভাঙ্গা আম ক্রয় করে আবাদ শুরু করেন। হাড়িভাঙ্গা আমের জনক হিসেবে তিনি নফেল উদ্দিনকেই স্বীকৃতি দিয়ে নিজেকে হাড়িভাঙ্গা আমের সম্প্রসারক হিসেবে দাবি করেন।

 

 

আব্দুছ ছালাম ১৯৯২ সাল থেকে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ শুরু করেন এবং এখন রংপুরে কয়েক লাখ হাড়িভাঙ্গা আমের গাছ রয়েছে। বর্তমানে তিনি ২৫ টি আমের বাগান করেছেন। আগামী জুন মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে হাড়িভাঙ্গা আমবাজারে বিক্রি হবে। তবে প্রতিকূল আবহাওয়ার কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার আমের ফলন কম বলে তিনি জানান।

 

 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, মধ্য জানুয়ারি থেকে ফেব্রুয়ারির মধ্যে হাড়িভাঙ্গা আমের ফুল বা মুকুল আসে। আম পরিপক্ক হয় জুন মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের দিকে। দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে আগস্টের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত ফল সংগ্রহ করা হয়। এক একটি আমের গড় ওজন ২০০ থেকে ৪০০ গ্রাম পর্যন্ত। পুষ্ট কাঁচা আম ৪-৫ দিন এবং পাকা আম ২-৩ দিন সংরক্ষণ করা যায়।
প্রতি হেক্টরে হাড়িভাঙ্গা আমের গড় ফলন ১১ মেট্রিক টন। আর বিঘা প্রতি দেড় মেট্রিক টন। হেক্টর প্রতি উৎপাদন ব্যয় দেড় থেকে দুই লাখ টাকা। আর বিঘায় ২০-২৫ হাজার টাকা খরচ হয় বলে জানায় স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ।

 

 

মৌসুমের শুরুতে হাড়িভাঙ্গা আমের বাজার দর প্রতি কেজি ৮০ থেকে ১০০ টাকা, মাঝামাঝি সময়ে ৫০ থেকে ৮০ টাকা এবং শেষ দিকে ৩০০ থেকে ৪২৫ টাকা কেজি বিক্রি হয় হাড়িভাঙ্গা আম। এ নআম চাষ করে হেক্টর প্রতি প্রায় ৫ থেকে ৬ লাখ টাকা আয় করেন কৃষকরা।

 

রংপুরের মিঠাপুকুরের পদাগঞ্জহাট ও বদরগঞ্জের স্টেশন বাজার এ অঞ্চলের হাঁড়িভাঙ্গা আমের বড় পাইকারি হাট। এ হাট থেকে প্রতিদিন ট্রাকে করে হাড়িভাঙ্গা আম নিয়ে যায় ব্যবসায়ীরা। রংপুরের ফলের আড়ত ছাড়াও টার্মিনালের পশ্চিম কোনে বসে হাঁড়িভাঙ্গা আমের হাট। এখান থেকেও পাইকাররা আম কিনে নিয়ে যায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে।

 

 

কৃষকরা জানান, আম পাকার আগেই এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী বাগান কিনে ক্ষতিকর বালাইনাশক মিশিয়ে আম পাকিয়ে তা বাজারজাত করছে। এতে করে যারা আম কিনে খাচ্ছেন, তারা হাড়িভাঙ্গা আমের প্রকৃত স্বাদ থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন এবং প্রচুর পরিমাণ কীটনাশক খাচ্ছেন। এতে করে আমের বদনাম হচ্ছে।

 

রংপুর কৃষি তথ্য সার্ভিসের বেতার তথ্য কর্মকর্তা কৃষিবিদ আবু সায়েম জানান, আম ফলনে এক বছর অনইয়ার এবং এক বছর অফ ইয়ার হিসেবে বিবেচিত হয়। এবার রংপুর অঞ্চলে আমের অফ ইয়ার। এছাড়া অসময়ে ঝড় বৃষ্টি হওয়ায় আমের ফলন কিছুটা কম হতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

 

 রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক শ ম আশরাফ বলেন, হাড়িভাঙ্গা আম রংপুরের ঐতিহ্য। ২০১৬-১৭ অর্থবছরে এক হাজার ৪৫০ হেক্টর জমিতে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে বেশিরভাগ মিঠাপুকুর এবং বদরগঞ্জ উপজেলায়। সদর উপজেলার কিছু জমিতেও হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়। তিনি বলেন, এখন পর্যন্ত এ আমের ফলন ভাল। কালবৈশাখী ঝড়ে কিছুটা আম পড়লেও বাগানের উল্লেখযোগ্য ক্ষতি হয়নি।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
জৈষ্ঠ্য মাসের প্রথম সপ্তাহে জেলার হিমসাগর আম গেল ইউরোপে। আর এর মধ্য দিয়েই আম রপ্তানিতে কৃষি বিভাগের প্রচেষ্টা তৃতীয়বারের মতো সাফল্যের মুখ দেখলো। সোমবার রাতে রপ্তানির প্রথম চালানেই জেলার দেবহাটা উপজেলার ছয়জন চাষী ও সদর উপজেলার তিনজন চাষীর বাগানের হিমসাগর আম পাঠানো হলো ...
মধূ মাসে বাজারে উঠেছে পাকা আম। জেলা শহর থেকে ৬০ কি.মি দুরের প্রত্যন্ত ভোলাহাট উপজেলার স্থানীয় বাজারে ফরমালিন মুক্ত গাছপাকা আম এখন চড়া দামে বিক্রয় হচ্ছে। মালদহ সীমান্তবর্তী বিশাল আমবাগান ঘেরা এই উপজেলায় বেশ কিছু জায়গা ঘুরে বাজারগুলোতে শুধু গাছপাকা আম পেড়ে বিক্রয় করতে দেখা ...
রাজশাহী ও রংপুরের পর এবার মেহেরপুরেও তৈরি হচ্ছে বিদ্যুৎ বিহীন প্রাকৃতিক হিমাগার। এখানে অল্প খরচে সংরক্ষণ করা যাবে পিঁয়াজ ও আলু। এই হিমাগার সফলভাবে বাস্তবায়ন হলে ভবিষ্যতে আম ও লিচুর সংরক্ষণাগার তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন উদ্যোক্তা। কৃষি বিভাগ বলছে, এই সংরক্ষণাগার ...
বাড়ছে আমের চাষ। মানসম্পন্ন আম ফলাতে তাই দরকার আধুনিক উত্পাদন কৌশল। আম চাষিদের জানা দরকার কীভাবে জমি নির্বাচন, রোপণ দূরত্ব, গর্ত তৈরি ও সার প্রয়োগ, রোপণ প্রণালী, রোপণের সময়, জাত নির্বাচন, চারা নির্বাচন, চারা রোপণ ও চারার পরিচর্যা করতে হয়। মাটি ও আবহাওয়ার কারণে দেশের ...
গাছ ফল দেবে, ছায়া দেবে; আরও দেবে নির্মল বাতাস। আশ্রয় নেবে পাখপাখালি, কাঠ বেড়ালি, হরেক রকম গিরগিটি। গাছ থেকে উপকার পাবে মানুষ, পশুপাখি, কীটপতঙ্গ– সবাই। আর এতেই আমি খুশি। ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকাননে ছোট ছোট আমগাছের গোড়া পরিচর্যা করার সময় এ কথাগুলো বলেন বৃক্ষ প্রেমিক জহির ...
রীষ্মের এই দিনে অনেকেরই পছন্দ আম।এই আমের আছে আবার বিভিন্ন ধরণের নাম।কত রকমের যে আম আছে এই যেমনঃ ল্যাংড়া,ফজলি,গুটি আম,হিমসাগর,গোপালভোগ,মোহনভোগ,ক্ষীরশাপাত, কাঁচামিঠা কালীভোগ আরও কত কি! কিন্তু এবারে বাজারে এসেছে এক নতুন নামের আর তার নাম 'বঙ্গবন্ধু'। নতুন নামের এই ফলটি দেখা ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২