Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

রাস্তা পেরোলেই কেজিতে ব্যবধান ৪০ টাকা

চলছে মধু মাস জ্যৈষ্ঠ। রাজধানীর ফলের বাজার এখন পুরোটাই দেশি ফলের দখলে। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিদিনই ট্রাক-পিকআপে ভরে রাজধানীতে প্রবেশ করছে মধু ফল আম, জাম, কাঁঠাল ও লিচু।

রকমারি স্বাদ, রং, রূপ ও বৈচিত্র্যের এসব দেশি ফলের মৌ মৌ ঘ্রাণে ভরপুর রাজধানীর সর্বত্র। তবে স্থান ও অঞ্চল ভেদে খুচরা বাজারে আমের দামে বিস্তর পার্থক্য রয়েছে। এমনকি এক মিনিটের দূরুত্ব এমন দুই স্থানের মধ্যেও কেজিপ্রতি ৩০ থেকে ৪০ টাকা পার্থক্য দেখা গেছে।

রবিবার (২৯ মে) রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও রাজধানীর বাজারে জাম ও লিচুর দাম এখনো বেশ চড়া। অবশ্য নাগালের মধ্যে রয়েছে আম ও কাঁঠাল। এক সপ্তাহের ব্যবধানে আমের দাম নেমে এসেছে প্রায় অর্ধেকে। গত সপ্তাহে রাজধানীতে যে আম ১২০ থেকে ১৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে, তা এখন বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৮০ টাকায়।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, বাজারে সবার আগে এসেছে হিমসাগর আম। বর্তমানেও বাজারে হিমসাগর আম সব থেকে বেশি পাওয়া যাচ্ছে। তবে কয়েক দিন ধরে আসতে শুরু করেছে গোপালভোগ, আম্রপালি, সুরমা, ল্যাংড়াসহ আরও কয়েক জাতের আম।

এসব আমের বেশির ভাগই আসছে সাতক্ষীরা ও মেহেরপুর থেকে। উত্তরবঙ্গের রাজশাহী থেকেও আম আসতে শুরু করেছে। রাজশাহীর আমের সরবরাহ বাড়লে দাম আরও কমতে পারে বলে মনে করছেন বিক্রেতারা।

এদিকে স্থান ও অঞ্চলভেদে খুচরা বাজারে আমের দামে বিস্তর ফারাক রয়েছে। যাত্রাবাড়ি পার্কসংলগ্ন বাজারে যে হিমসাগর আম ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে, সেই একই জাত ও মানের আম শহীদ ফারুক সড়কে বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকায়। অথচ এ দুটি স্থানের মধ্যবর্তী দূরুত্ব মাত্র এক মিনিটের মতো। মাঝে শুধু পরিবহন চলাচলের রাস্তা রয়েছে।

মানিকনগর রেল লাইনসংলগ্ন বাজারে প্রতি কেজি ভালো মানের হিমসাগর আম বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকা দরে। একই দামে পাওয়া যাচ্ছে আম্রপালি। তবে কিছুটা কমে ৬০ টাকা দরে পাওয়া যাচ্ছে ল্যাংড়া ও সুরমা আম। গত সপ্তাহে এই বাজারটিতে হিমসাগর আম বিক্রি হয়েছে ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকা কেজি।

বাণিজ্যিক এলাকা মতিঝিলে প্রতি কেজি ভালো মানের হিমসাগর ও গোপালভোগ আম বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকা থেকে ১০০ টাকা দরে। আকৃতিতে কিছুটা ছোট হিমসাগর ও গোপালভোগ বিক্রি হচ্ছে ৬০ থেকে ৭০ টাকায়। আমম্রপালি পাওয়া যাচ্ছে ৮০ টাকায়। আর ল্যাংড়া আম বিক্রি হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে। গত সপ্তাহে মতিঝিল এলাকায় হিমসাগর আমের কেজি ছিল ১০০ টাকা থেকে ১৪০ টাকা।

মতিঝিল অঞ্চলে যে আম ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, সেই জাত ও মানের আম যাত্রাবাড়ি অঞ্চলে ৬০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। মতিঝিল অঞ্চলের মধ্যেও দামের এ পার্থক্য রয়েছে। মতিঝিলের ‍দিলকুশার পিপলস ও বিসিআইসি ভবনের সামনে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হওয়া একই মানের হিমসাগর ও গোপালভোগ আম মতিঝিলের শাপলা চত্বরের পাশে অবস্থিত এফবিসিসিআই ভবনের সামনের ফুটপাতে বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়।

আমের মতোই স্থান ও অঞ্চলভেদে দামের পার্থক্য রয়েছে লিচু, কাঁঠাল, জাম, আনারসসহ অন্য ফলের। যাত্রাবাড়িতে ৭০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হওয়া জাম মতিঝিলে বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা থেকে ১৫০ টাকায়। আর মানিকনগরে পাওয়া যাচ্ছে ১০০ টাকা ১২০ টাকায়।

বড় আকারের কাঁঠাল যাত্রাবাড়িতে ১০০ থেকে ১৫০ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে। মতিঝিলে ওই আকারের কাঁঠাল বিক্রি হচ্ছে ২০০ থেকে ২৫০ টাকায়। একটি আনারস যাত্রাবাড়িতে ১৫ থেকে ২০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। অথচ একই আকারের আনারস মতিঝিল থেকে কিনতে খরচ করতে হবে ৩০ থেকে ৪০ টাকা। বড় আকারের লিচু যাত্রাবাড়িতে এক শ পিস বিক্রি হচ্ছে ২৮০ থেকে ৩০০ টাকায়, মতিঝিলে ওই আকারের লিচুর দাম ৪০০ থেকে ৪৫০ টাকা।

এদিকে বাজারে বেশ আগেই আসা তরমুজ এখনো পাওয়া যাচ্ছে। তবে তরমুজের দাম কিছুটা চড়া। স্থান ভেদে মাঝারি আকারের তরমুজ বিক্রি হচ্ছে ১৮০ থেকে ২০০ টাকায়। আর বড় আকারের তরমুজের দাম ২২০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা।

দামের পার্থক্যের বিষয়ে জানতে চাইলে মতিঝিলের আম বিক্রেতা মো. ফয়সাল বলেন, ‘আমরা স্থায়ী ব্যবসায়ী। আমাদের কাছে কোনো খারাপ মাল নেই। ভালো মাল বিক্রি করি তাই হয়তো দাম একটু বেশি। যারা ভ্যানে করে পণ্য বিক্রি করে, তারা ভালোর মধ্যে খারাপও দিয়ে দেবে। আপনার ধরার কোনো ক্ষমতা থাকবে না। ভালো-খারাপ মিলিয়ে বিক্রি করার কারণে ওরা আমাদের থেকে কিছুটা কম দামে বিক্রি করতে পারে।’

তবে মতিঝিলের এই ব্যবসায়ীর কথার সঙ্গে মিল পাওয়া যায়নি যাত্রাবাড়িতে ভ্যানে আম বিক্রি করা মো. হোসেন আলীর কাছ থেকে আম কিনে ও কথা বলে। হোসেন আলীর কাছ থেকে আম কেনার সময় ক্রেতাদের নিজ হাতেই সব আম বেছে নেওয়ার সুযোগ দেন তিনি। তার মতো অন্য ব্যবসায়ীদেরও একই সুযোগ দিতে দেখা গেছে।

দামের পার্থক্যের বিষয়ে জানতে চাইলে হোসেন আলী বলেন, ‘আমরা কম লাভে পণ্য বিক্রি করি। তবে লাভ কম হলেও বিক্রি বেশি হয়। আর ভালো আমের সঙ্গে খারাপ আম ভেজাল দেওয়ার সুযোগ নেই। ভালো আমের ভেতরে একটি খারাপ আম দিলেই ক্রেতরা আর কিনতে চান না।’

এই ব্যবসায়ী আরও বলেন, ‘কম দামে বিক্রি করলেও, আমাদের বেশি হয়রানির শিকার হতে হয়। পুলিশকে নিয়মিত টাকা দিতে হয়, তারপরও অনেক সময় পুলিশ এসে দোকান তুলে দেয়। অথচ ফুটপাত দখল করে যারা স্থায়ী দোকান বসিয়েছেন তাদের পুলিশ কিছু বলে না। অথচ কেজিতে ওই দোকানদাররা আমাদের থেকে অনেক বেশি লাভ করেন।’

এদিকে গত কয়েক বছর ধরে বাজারে আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু আসলে ফরমালিন নিয়ে বেশ হই চই দেখা গেলেও, এবার ফরমালিন নিয়ে তেমন কোনো আলোচনা নেই। ব্যবসায়ীরা দাবি করছেন, এবার ফলে কেমিক্যাল খুব একটা মেশানো হচ্ছে না। বাজারের অধিকাংশ ফলই কেমিক্যাল মুক্ত।

গত শনিবার (২৮ মে) ভোররাতে গাজীপুর বাইপাস আড়তের মা বাণিজ্যালয়ের মালিক লিটন হোসেন বলেন, ‘রাজশাহী অঞ্চল থেকে পুরোদমে আম এখনো আশা শুরু হয়নি। আশা করা যাচ্ছে, কয়েক দিনের মধ্যেই রাজশাহী থেকে পুরোদমে আম আসতে শুরু করবে। তখন দাম আরও কমবে।’

ফরমালিনের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এখন আড়তদার অথবা বিক্রেতারা আমে ফরমালিন মেশায় না। যদি কোনো আমে কেমিক্যাল থেকে থাকে, তবে তা স্থানীয় পর্যায় থেকেই মেশানো হয়। তবে আমরা যতটুকু জানি, ব্যাপারীরা এখন ফরমালিন দেন না, শুধু কালার আনার জন্য কিছু কারবাইড দিয়ে থাকেন।’

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
মেহেরপুরে এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। গত কয়েকদিনের কালবৈশাখী ঝড়ে কিছুটা ক্ষতিগ্রস্থ হলেও চলতি বছরও আম চাষিরা লাভের আশা করছেন। এদিকে গেল বছর স্বল্প পরিসরে সুস্বাদু হিমসাগর আম ইউরোপিয়ান ইউনিয়নে রপ্তানি হলেও এ বছর ব্যাপক হারে রপ্তানি করার প্রস্তুতি নিয়েছে বাগান মালিকও আম ...
রপ্তানি যোগ্য আম উৎপাদন করেও রপ্তানি করতে না পেরে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। কৃষি অধিদপ্তরের কোয়ারেন্টাইন উইংয়ের সাথে স্থানীয় কৃষি বিভাগের সমন্বয়হীনতার কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে মে করেন বাগান মালিক ও চাষিরা। অন্যদিকে জেলার ...
বাজারে আম সহ মাছ, ফল, সবজিসহ বিভিন্ন খাদ্য সংরক্ষণে যখন হরহামেশাই ব্যবহার হচ্ছে মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ফরমালিন, ঠিক তখনই এর বিকল্প আবিষ্কার করেছেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানী ড. মোবারক আহম্মদ খান। বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের প্রধান এই বৈজ্ঞানিক ...
আম রফতানির মাধ্যমে চাষিদের মুনাফা নিশ্চিত করার উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। এজন্য দেশে বাণিজ্যিকভাবে আমের উৎপাদন, কেমিক্যালমুক্ত পরিচর্যা এবং রফতানি বাড়াতে সরকার বিশেষ পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। সে লক্ষ্যে গাছে মুকুল আসা থেকে শুরু করে ফল পরিপক্বতা অর্জন, আহরণ, গুদামজাত, পরিবহন এবং ...
গাছ ফল দেবে, ছায়া দেবে; আরও দেবে নির্মল বাতাস। আশ্রয় নেবে পাখপাখালি, কাঠ বেড়ালি, হরেক রকম গিরগিটি। গাছ থেকে উপকার পাবে মানুষ, পশুপাখি, কীটপতঙ্গ– সবাই। আর এতেই আমি খুশি। ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকাননে ছোট ছোট আমগাছের গোড়া পরিচর্যা করার সময় এ কথাগুলো বলেন বৃক্ষ প্রেমিক জহির ...
আম গাছ কে দেশের জাতীয় গাছ হিসেবে ঘোষনা দাওয়া হয়েছে। আর এরই প্রতিবাদে কিছুদিন আগে এক সম্মেলন হয়ে গেলো যেখানে বলা হয়েছে :-"৮৫% মমিন মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ। ঈমান আকিদায় দুইন্নার কুন দেশেরথে পিছায় আছি?? আপনেরাই বলেন। অথচ জালিম সরকার ভারতের লগে ষড়যন্ত কইরা আমাগো ঈমানের লুঙ্গি ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২