Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

প্রশাসনের কড়া নজরদারিতে কপাল পুড়ল রাজশাহী আম চাষীদের

রাজশাহীতে সবচেয়ে বড় আমের পাইকারী বাজার বানেশ্বর। এই বাজারেই বাগানের আম বিক্রি করতে এসেছিলেন পবা উপজেলার কিসমতকুখন্ডি গ্রামের আজিম। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত থেকেও বাজারে তিনি আম বিক্রি করতে না পেরে ফিরে গেছেন। তিনি বললেন, এবার বাজারে বাইরে থেকে তেমন পাইকার আসেনি। রোজা শুরু হলেও বেচা-বিক্রি নেই। দামও কম।  জানা গেছে, জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্তের কারণে এবার কপাল পুড়েছে রাজশাহী আম চাষীদের। আমের বাম্পার ফলন হলেও দাম পাচ্ছেন না তারা। হাটে-বাজারে আমের ক্রেতা নেই। ফলে আম বাজারে নিয়ে বসে থেকে ফিরে যাচ্ছেন চাষী ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা।  বাঘা উপজেলার আড়পাড়া গ্রামের আমচাষী মহসিন আলী জানান, গত বছর ১৮০০-২০০০ টাকা মণে ক্ষিরসাপাতি আম বিক্রি হলেও এবার তা ১২০০-১৫০০ টাকা মণে বিক্রি করতে হচ্ছে। বাজারে প্রচুর আম থাকলেও ক্রেতা নেই। ঢাকা, চট্টগ্রাম ও অন্যান্য জায়গা থেকে গত বছরগুলোতে পাইকার আসলেও এবার তাদের দেখা নেই। কারণ গত বছরগুলোতে রাজশাহী থেকে আম কিনে নিয়ে যাওয়ার সময় তাতে ফর্মালিন মেশাতো অনেক ব্যবসায়ীরা। কিন্তু এবার প্রশাসনের কড়া নজরদারি থাকায় ফর্মালিন মেশানো যাচ্ছে না। এ কারণেই এবার দুর থেকে আমের পাইকার আসছে না। আম পচনশীল হওয়ায় তারা ঝুকি নিতে চাচ্ছে না।  এবার প্রায় পঞ্চাশ বিঘা জমিতে আমের চাষ করেছেন রাজশাহীর পবা উপজেলার কাপাশিয়ার আসাদুজ্জামান আসাদ। তিনি বলেন, স্থানীয় প্রশাসনের কড়াকড়ির কারণে তিনি জুন মাসের আগে আম পেড়ে বিক্রি করতে পারেননি। এতে বিপাকে পড়েছেন। কারণ, বাগানের সব আমই এক সঙ্গে পাবে না। কয়েকদিনের ব্যবধানে পাকে। কিন্তু এখন সব আমই এক সাথে বাগান থেকে পেড়ে বাজারে আনা হচ্ছে। এতে আমদানি বেশি হচ্ছে। ফলে কমে গেছে দাম।  তিনি জানান, তার মতো এই অঞ্চলের অন্য আমচাষীদেরও একই অবস্থা। আমে ফরমালিন বা কেমিক্যাল মেশানো বন্ধে প্রশাসন রাজশাহী ৫জুনের আগে আম পাড়া নিষদ্ধি করেছিল।  রাজশাহীর বানেশ্বর বাজারের আড়তদার মঞ্জুর হাসান বলেন, এবার বাইরের ক্রেতা খুবই কম। অন্যান্য বছর গড়ে প্রতিদিন ২৫-৩০ ট্রাক আম জেলার বাইরে পাঠানো হতো। এবার সর্বোচ্চ ছয় ট্রাক করে আম যাচ্ছে। গত বছর ঢাকা ও চট্টগ্রামে আম নিয়ে যাওয়ার সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত ফরমালিন পরীক্ষা করে প্রচুর আম রাস্তায় নষ্ট করে ফেলেন। এবারও ব্যবসায়ীরা পুলিশি অভিযানের ভয়ে আছে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
বাজারে গত মাসের মাঝামাঝি সময় থেকেই আম আম রব। ক্রেতা যে আমেই হাত দিক না কেন দোকানি বলবে হিমসাগর নয়তো রাজশাহীর আম। ক্রেতা সতর্ক না বলে রঙে রূপে একই হওয়ায় দিব্যি গুটি আম চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে হিমসাগরের নামে। অনেকসময় খুচরা বিক্রেতা নিজেই জানে না তিনি কোন আম বিক্রি করছেন। ...
ফলের রাজা আম।বাংলাদেশ এবং ভারত এ যে প্রজাতির আম চাষ হয় তার বৈজ্ঞানিক নাম Mangifera indica. এটি Anacardiaceae পরিবার এর সদস্য। তবে পৃথিবীতে প্রায় ৩৫ প্রজাতির আম আছে। আমের বিভিন্ন জাতের মাঝে আমরা মূলত ফজলি, ল্যাংড়া, গোপালভোগ, ক্ষিরসাপাত/হীমসাগর,  আম্রপালি, মল্লিকা,আড়া ...
চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার ভোলাহাট আম ফাউন্ডেশনে উন্নত ও আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে আম বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে আমচাষীদের নিয়ে পরীক্ষামূলক প্রদর্শনী ও সভা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সকাল থেকে শুরু হয়ে দিনব্যাপী চলা বিভিন্ন প্রদর্শনীতে এলাকার আমচাষী ও ব্যবসায়ীরা অংশ ...
বাংলাদেশে উৎপাদিত ফল ও সবজির রপ্তানির সম্ভাবনা অনেক। তবে সম্ভাবনার তুলতায় সফলতা যে খুব যে বেশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানি সংশ্লিষ্ঠ ব্যাক্তিবর্গ অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্নভাবে তাদের প্রচেষ্ঠা অব্যহত রেখেছেন। কিন্তু এদের সুনির্দিষ্ট কোন কর্ম পরিকল্পনা নেই বললেই চলে। ...
মৌসুমি ফল দিয়ে কর্তা ব্যক্তিদের খুশি করে স্বার্থ উদ্ধারের পদ্ধতি অনেক দিনের। বর্তমানে এই খুশি বিষয়টি আদায় করতে নগদ অর্থ খরচ করতে হলেও ফল থেরাপি ধরে রেখেছে অনেকেই। এর একটি হল মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের জন্য নিয়মিত ...
রীষ্মের এই দিনে অনেকেরই পছন্দ আম।এই আমের আছে আবার বিভিন্ন ধরণের নাম।কত রকমের যে আম আছে এই যেমনঃ ল্যাংড়া,ফজলি,গুটি আম,হিমসাগর,গোপালভোগ,মোহনভোগ,ক্ষীরশাপাত, কাঁচামিঠা কালীভোগ আরও কত কি! কিন্তু এবারে বাজারে এসেছে এক নতুন নামের আর তার নাম 'বঙ্গবন্ধু'। নতুন নামের এই ফলটি দেখা ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২