Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

আমের দাম দ্বিগুণ

হিমসাগর, গোপালভোগ, লখনার মতো উন্নতজাতের আমগুলো বেশ কিছু দিন আগেই বাজার থেকে বিদায় নিয়েছে। এখন বাজারে বেশি পরিমাণে আছে ফজলি ও আশ্বিনা। স্বল্প পরিমাণে আছে আম্রপালি ও ল্যাংড়া। আম শেষ হয়ে আসায় ছোট হয়ে এসেছে আমের বাজার। ফলে এই মুহূর্তে আমের দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, গত এক সপ্তাহ থেকে আমের দাম বাড়তির দিকে। গতকাল শনিবারও মণে ১০০ টাকা বেশিতে আম বিক্রি হয়েছে। বাগানে আম প্রায় শেষ হতে আসায় দাম এখন উঠতির দিকে। বেশি দাম না দিলে বাগান মালিকরা আমই দিতে চাচ্ছেন না। ফলে কিনতে হচ্ছে বেশি দামে, বিক্রিও করতে হচ্ছে বেশিতে। এতে আমচাষিরা লাভবান হচ্ছেন বলেও জানান ব্যবসায়ীরা।

রাজশাহীর সবচেয়ে বড় আমের হাট বসে পুঠিয়ার বানেশ্বরে। সেখানে গিয়ে দেখা যায়, প্রতি মণ ফজলি বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার ৪০০ টাকা দরে। প্রতি মণ লাড়ুয়া ভোগ বিক্রি হচ্ছে ছয় হাজার টাকায়। এছাড়া আশ্বিনা বিক্রি হচ্ছে প্রতি মণ তিন হাজার টাকায়। এছাড়া খুবই সামান্য পরিমাণে থাকা ল্যাংড়া বিক্রি হচ্ছে সাড়ে পাঁচ থেকে ছয় হাজার টাকায়।

রাজশাহী মহানগরীর সাহেববাজার, শালবাগান ও শিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকার আমের বাজারে গিয়ে দেখা যায়, মৌসুম প্রায় শেষ হয়ে আসায় কমেছে আমের দোকানের সংখ্যা। ফলে বেড়েছে দাম। এই তিন বাজারে আম্রপালি, মহারাজ ফজলি, সুরমা ফজলি ও আশ্বিনা আম বিক্রি হতে দেখা যায়।

শিরোইলের রাজন ফল ভাণ্ডারের বিক্রয়কর্মী রবিউল ইসলাম জানান, নানা জাতের ফজলি এখানে দুই হাজার ৪০০ থেকে তিন হাজার টাকায় বিক্রি করা হচ্ছে। চোষা বিক্রি হচ্ছে দুই হাজার ৮০০ টাকায়। খুব কম পরিমাণে থাকায় ল্যাংড়া ও আম্রপালির দাম আরও চড়া। এগুলো ছয় থেকে সাত হাজার টাকা মণ দরেও বিক্রি হচ্ছে।

বাদশা আমের আড়তের মালিক বাদশা শেখ বলেন, আম কমতে কমতে এখন ফজলি এবং আশ্বিনার মধ্যে সীমাবদ্ধ হতে শুরু করেছে। ফজলি বাজারে এসেছে প্রায় এক মাস আগেই। তবে আশ্বিনা আসছে গত সপ্তাহ থেকে। ফজলি বাজারে মিলবে আরও প্রায় ১৫ দিন। আর আশ্বিনা পাওয়া যাবে আরও প্রায় মাসখানেক। বাজারে আমের সরবরাহ কমার কারণে দাম বেড়েছে বলেও জানান তিনি।

শালবাগান বাজারের ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম জানান, গত কয়েকদিন ধরে রাজশাহীতে বৃষ্টি লেগেই আছে। এই বৃষ্টির কারণেও আমচাষি এবং ব্যবসায়ীরা বাগান থেকে ঠিকমতো আম পাড়তে পারছেন না। এতে বাজারে আমের সরবরাহ কমেছে। ফলে দামও বেড়েছে কিছুটা। এরপরেও আম বিক্রি কমেনি। শেষ মুহূর্তে চাহিদাও বেড়েছে মৌসুমি এ ফলের।

সাহেববাজারের ব্যবসায়ী জসিম উদ্দিন বলেন, এবার আমের মৌসুম শুরু হয়েছিল রোজার ভেতর। তাই দাম ছিল কম। চাষি, ব্যবসায়ীরাও এতে খুব একটা লাভবান হননি। রোজার পর থেকেই আমের দাম বাড়তে থাকে। এখন আম শেষ হতে থাকায় দাম বাড়তেই থাকবে। বাড়তি এ দাম কমার সম্ভাবনাও কম। কারণ, মৌসুমের শুরুর দিকে যেসব চাষিরা আম বিক্রি করে খুব বেশি লাভবান হতে পারেননি, তারা এখন চড়া দাম ছাড়া আম বিক্রি করছেন না।

প্রসঙ্গত, রাজশাহীর প্রায় ১৭ হাজার হেক্টর জমিতে আমের বাগান রয়েছে। এবার আম এসেছিল এক লাখ ২৬ হাজার ৪৮০ গাছে। জেলায় এবার দুই লাখ মেট্রিক টনের বেশি আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল। তবে মৌসুমের শুরুতেই ৯০ থেকে ৯৫ কিলোমিটার গতিবেগের এক কালবৈশাখীতে ঝরে পড়ে প্রচুর আম। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হন চাষিরা। আমের দাম সাধ্যমতো বাড়িয়ে সে ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার চেষ্টা চলছে বলেও জানিয়েছেন কোনো কোনো চাষি।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিখ্যাত ‘খিরসাপাত’ জাতের আম জিআই’ (ভৌগোলিক নির্দেশক) পণ্য হিসেবে নিবন্ধিত হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে গেজেট জারি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। নিবন্ধন পেলে সুস্বাদু জাতের এই আম ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম’ নামে বাংলাদেশসহ বিশ্ব বাজারে পরিচিতি লাভ করবে।  এই আমের ...
আম ছাড়া মধুমাস যেন চিনি ছাড়া মিষ্টি। বছর ঘুরে এই আমের জন্য অপেক্ষায় থাকে সবাই। রসালো এ ফলের জন্য অবশ্য অপেক্ষার পালা এবার শেষ হয়েছে। রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে বুধবার থেকে শুরু হয়েছে আম পাড়া। এর আগে প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার কারণে আমের রাজধানীতে এতদিন আম পাড়া বন্ধ ছিল। তাইতো ...
চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমবাগানগুলোতে আমের ‘মাছিপোকা’ দমনে কীটনাশক ব্যবহার না করে সেক্স ফেরোমেন ফাঁদ ব্যবহার শুরু হয়েছে। পরিবেশবান্ধব এই ফাঁদকে কোথাও কোথাও ‘জাদুর ফাঁদ’ও বলা হয়ে থাকে। দু-তিন দিকে কাটা-ফাঁকা স্থান দিয়ে মাছিপোকা ঢুকতে পারে, এমন একটি প্লাস্টিকের কনটেইনার বা বোতলের ...
বাংলাদেশে উৎপাদিত ফল ও সবজির রপ্তানির সম্ভাবনা অনেক। তবে সম্ভাবনার তুলতায় সফলতা যে খুব যে বেশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানি সংশ্লিষ্ঠ ব্যাক্তিবর্গ অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্নভাবে তাদের প্রচেষ্ঠা অব্যহত রেখেছেন। কিন্তু এদের সুনির্দিষ্ট কোন কর্ম পরিকল্পনা নেই বললেই চলে। ...
বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে আছে বিভিন্ন বয়সী অনেক পুরনো গাছ। এর কোন কোনটি ২০০-৩০০ বছরেরও বেশি বয়সী। আবার কোনটির বয়স তার চেয়েও বেশি। তেমনই ঠাকুরগাঁওয়ের একটি আমগাছের কথা সেদিন জানতে পারলাম ফেসবুকে একজনের পোষ্ট থেকে। একটি আমগাছ যার বয়স নাকি ২০০ বছরেরও ...
আম গাছ কে দেশের জাতীয় গাছ হিসেবে ঘোষনা দাওয়া হয়েছে। আর এরই প্রতিবাদে কিছুদিন আগে এক সম্মেলন হয়ে গেলো যেখানে বলা হয়েছে :-"৮৫% মমিন মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ। ঈমান আকিদায় দুইন্নার কুন দেশেরথে পিছায় আছি?? আপনেরাই বলেন। অথচ জালিম সরকার ভারতের লগে ষড়যন্ত কইরা আমাগো ঈমানের লুঙ্গি ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২