Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধিত হতে যাচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের হিমসাগর নামে ক্ষ্যাত ‘খিরসাপাত’ আম

চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিখ্যাত ‘খিরসাপাত’ জাতের আম জিআই’ (ভৌগোলিক নির্দেশক) পণ্য হিসেবে নিবন্ধিত হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে গেজেট জারি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। নিবন্ধন পেলে সুস্বাদু জাতের এই আম ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম’ নামে বাংলাদেশসহ বিশ্ব বাজারে পরিচিতি লাভ করবে। 

এই আমের মিষ্টতার পরিমাণ, আকার, ওজন ও অন্যান্য বৈশিষ্টও আদর্শ। এখন দেশের চাহিদা মিটিয়ে ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি হচ্ছে চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম যা দেশের বিভিন্ন স্থানে ‘হিমসাগর’ নামে পরিচিত। সম্ভাবনা বিবেচনা করে ও আমেরস্বত্ব (প্যাটেন্ট) সুরক্ষার চিন্তা থেকেই ২০১৭ সালের ২ ফেব্রুয়ারি চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আমকে জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধনের আবেদন করা হয়।

আঞ্চলিক উদ্যানতত্ব গবেষণা কেন্দ্রের সহায়তায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের তত্ত্বাবধানে আবেদন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ হামিম রেজা জানান, নিবন্ধনের ব্যাপারে তারা পুরো ২০১৭ সাল জুড়েই কাজ করেছেন। তারা প্রমাণের চেষ্টা করেছেন যে, খিরসাপাত জাতটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের নিজস্ব। তাই খিরসাপাতকে নিবন্ধন আবেদন তালিকার শীর্ষে রাখা হয়। কারণ এ জাতটি সবচেয়ে স্বসাদু ও সবচেয়ে বেশী উৎপাদিত হয় এবং দেশে ও বিদেশে এর চাহিদা সবচেয়ে বেশি। 

তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের মধ্যে প্রথম জিআই জাত হিসেবে খিরসাপাত অন্তর্ভুক্ত হবে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের ল্যাংড়া ও আশ্বিনা জাতের আমের ব্যাপারেও তারা আশাবাদী। পরবর্তিতে এ দুটি জাতও জিআই পণ্য হিসেবে নিবন্ধনের আবেদন করা  হবে। 

তিনি আরও বলেন, এটা জেলাবাসীর জন্য খুবই আনন্দের একটি ব্যাপার। সেই সাথে জিআই পণ্য হিসাবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আমের নিবন্ধন এ জাতটির চাষ ও ব্যবসাকে উৎসাহিত করবে। এতে উৎপাদন বাড়বে এবং আম কেন্দ্রিক অর্থনীতির বিকাশ হবে। 

চাঁপাইনবাবগঞ্জের জেলা প্রশাসক মোঃ মাহমুদুল হাসান জানান, ‘আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ’ শিরোনামে জেলা ব্রান্ডিং করা হচ্ছে। ব্রান্ডিং এর অংশ হিসেবে জেলার গুরুত্বপূর্ণ জাতের আমগুলোকে জিআই পণ্য হিসাবে নিবন্ধনের কাজ চলছে। এরমধ্যে খিরসাপাত জাতটি চুড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। আশা করা হচ্ছে শীঘ্রই এর নিবন্ধন (জিআই নং) পাওয়া যাবে। খিরসাপাত আম জিআই পন্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করলে জেলার আম চাষী ও ব্যবসায়ীরা লাভবান হবেন। সেই সাথে এটি জেলার নিজস্ব পন্য হিসেবে গন্য হবে। 

এদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষিসম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মঞ্জুরুল হুদা জানান, জেলায়  উৎপাদিত মোট আমের প্রায় ১২ শতাংশই খিরসাপাত জাতের। ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় এ আমকে হিমসাগর নামে চেনে। তবে জিআই পন্য হিসেবে স্বীকৃতি পেলে সকলে জানবে এ আমের প্রকৃত নাম ‘খিরসাপাত’ এবং সেই সাথে জেনে যাবে এ আমটি চাঁপাইনবাবগঞ্জের। তিনি আরও জানান, জুনের প্রথম সপ্তাহে খিরসাপাত আম বাজারে চলে আসে। এ আমের প্রায় ৭১ ভাগ খাদ্যযোগ্য অংশ, ঘ্রাণ সুন্দর এবং খেতেও সুস্বাদু । সে কারণে দেশ বিদেশে এ আমের বেশ চাহিদা রয়েছে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
বাজারে গত মাসের মাঝামাঝি সময় থেকেই আম আম রব। ক্রেতা যে আমেই হাত দিক না কেন দোকানি বলবে হিমসাগর নয়তো রাজশাহীর আম। ক্রেতা সতর্ক না বলে রঙে রূপে একই হওয়ায় দিব্যি গুটি আম চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে হিমসাগরের নামে। অনেকসময় খুচরা বিক্রেতা নিজেই জানে না তিনি কোন আম বিক্রি করছেন। ...
রপ্তানি যোগ্য আম উৎপাদন করেও রপ্তানি করতে না পেরে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। কৃষি অধিদপ্তরের কোয়ারেন্টাইন উইংয়ের সাথে স্থানীয় কৃষি বিভাগের সমন্বয়হীনতার কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে মে করেন বাগান মালিক ও চাষিরা। অন্যদিকে জেলার ...
চাঁপাইনবাবগঞ্জের ভোলাহাট উপজেলার ভোলাহাট আম ফাউন্ডেশনে উন্নত ও আধুনিক পদ্ধতি ব্যবহার করে আম বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে আমচাষীদের নিয়ে পরীক্ষামূলক প্রদর্শনী ও সভা হয়েছে।  বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সকাল থেকে শুরু হয়ে দিনব্যাপী চলা বিভিন্ন প্রদর্শনীতে এলাকার আমচাষী ও ব্যবসায়ীরা অংশ ...
বাংলাদেশে উৎপাদিত ফল ও সবজির রপ্তানির সম্ভাবনা অনেক। তবে সম্ভাবনার তুলতায় সফলতা যে খুব যে বেশি তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রপ্তানি সংশ্লিষ্ঠ ব্যাক্তিবর্গ অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বিভিন্নভাবে তাদের প্রচেষ্ঠা অব্যহত রেখেছেন। কিন্তু এদের সুনির্দিষ্ট কোন কর্ম পরিকল্পনা নেই বললেই চলে। ...
গাছ ফল দেবে, ছায়া দেবে; আরও দেবে নির্মল বাতাস। আশ্রয় নেবে পাখপাখালি, কাঠ বেড়ালি, হরেক রকম গিরগিটি। গাছ থেকে উপকার পাবে মানুষ, পশুপাখি, কীটপতঙ্গ– সবাই। আর এতেই আমি খুশি। ঐতিহাসিক মুজিবনগর আম্রকাননে ছোট ছোট আমগাছের গোড়া পরিচর্যা করার সময় এ কথাগুলো বলেন বৃক্ষ প্রেমিক জহির ...
আম গাছ কে দেশের জাতীয় গাছ হিসেবে ঘোষনা দাওয়া হয়েছে। আর এরই প্রতিবাদে কিছুদিন আগে এক সম্মেলন হয়ে গেলো যেখানে বলা হয়েছে :-"৮৫% মমিন মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ। ঈমান আকিদায় দুইন্নার কুন দেশেরথে পিছায় আছি?? আপনেরাই বলেন। অথচ জালিম সরকার ভারতের লগে ষড়যন্ত কইরা আমাগো ঈমানের লুঙ্গি ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২