Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

আম গাছে যথেচ্ছ ব্যবহার হচ্ছে ক্ষতিকর হরমোন

আমের রাজধানীখ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহীতে এবার নজর পড়েছে অধিক মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের। মালিকদের কাছ থেকে মৌসুমভিত্তিক আমবাগান কিনে তাতে ব্যবহার করছেন মাত্রাতিরিক্ত হরমোন। এ ধরনের হরমোন ভারত থেকে আসছে চোরাই পথে। সঠিক মাত্রায় এসব রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার না করায় গাছ দিন দিন ফল ধারণের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলছে বলে মনে করছেন গবেষকরা। তারা বলছেন- এতে ধীরে ধীরে আমগাছ মারাও যেতে পারে। এ অবস্থা চলতে থাকলে কয়েক বছরের মধ্যেই রাজশাহী অঞ্চলের আমবাগান উজাড় হয়ে যেতে পারে বলে আশংকাও প্রকাশ করেছেন তারা। সূত্র মতে, এক শ্রেণীর অতিরিক্ত মুনাফালোভী আম ব্যবসায়ী বাগান মালিকদের চোখে ফাঁকি দিয়ে কালটার নামক এক ধরনের ভারতীয় হরমোন আম গাছে ব্যবহার করছে। কীটনাশকের সঙ্গে অথবা রাসায়নিক সারের সঙ্গে মিশিয়ে আমগাছে কালটার ব্যবহার করা হচ্ছে। এর ফলে কয়েক মাস পর ধীরে ধীরে আমগাছের পাতা শুকিয়ে যায়। একপর্যায়ে গাছটি শুকিয়ে মারা যায়। চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকায় ইতিমধ্যে অনেক গাছ মারা গেছে বলে জানা গেছে।

 

মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা জানান, অবৈধ পথে আসা এই কালটার ভারতে বিভিন্ন এক বা দু ফসলি জমিতে অধিক ফলনের জন্য ব্যবহার করা হয়। বিশেষ করে বেগুন, টমেটো, মরিচ, সরিষা, মিষ্টি কুমড়া প্রভৃতি এক ফসলের ক্ষেতে ব্যবহৃত হয়। কিন্তু আম গাছের মতো বহু বছর ধরে ফল দেয় এমন গাছের জন্য এটি ভয়ানক ক্ষতিকর। সূত্র জানায়, গত ৪ থেকে ৫ বছর আগে সীমান্তবর্তী জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ এলাকার একশ্রেণীর চোরাকারবারি কালটার বাংলাদেশে এনে আম ব্যবসায়ীদের মাঝে ছড়িয়ে দেয়। এরপর ব্যবসায়ীরা অতিরিক্ত লাভের আশায় ব্যাপক হারে এটি ব্যবহার করেন। এক লিটার ভারতীয় কালটার এর দাম ১০ হাজার টাকা।চাঁপাইনবাবগঞ্জ শিবগঞ্জের রানীহাটি এলাকার দোস্ত মোহাম্মদ বিশ্বাস ওয়াকফ স্টেটের মোতায়ালি রেজাউল আনাম রেজা বলেন, হরমোন জাতীয় কালটার নামক মেডিসিনটি দেয়ার কারণে তাদের বাগানের প্রায় ৫০টি আমগাছ মারা গেছে। আগামী দুএক বছরের মধ্যে অধিকাংশ গাছ মরে বাগান ধ্বংস হয়ে যেতে পারে বলে তার আশংকা। বিশেষজ্ঞরা জানান, প্রাকৃতিক নিয়মে এক বছর আমের বাম্পার ফলন হলে পরের বছর ফলন হয় কম। সে হিসাবে এ বছর আমের জন্য অফ ইয়ার।গত বছর ছিল আমের অন ইয়ার। তাই বলে ফলন বাড়ানোর জন্য আমের বাগানে ক্ষতিকর হরমোন ব্যবহার করা ঠিক নয়। এতে শুধু গাছের নয়, বরং ওইসব গাছের ফল খেলে মানুষেরও ক্ষতি হতে পারে। রাজশাহী ফল গবেষণা কেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ আলীম উদ্দীন দিলেন ভয়ংকর তথ্য। তিনি জানান, আম বাগান মালিকরা নিজেরা আমের চাষ করেন না, তারা ব্যবসায়ীদের কাছে বাগান বিক্রি করে দেন। আর ব্যবসায়ীরা নিজেরা লাভবান হতে সঠিকমাত্রা ও সময় না জেনে ইচ্ছেমতো হরমোন ও ভিটামিন ব্যবহার করছে। নিয়ম হল, একবার যে বাগানে হরমোন স্প্র্রে করা হবে, সেই বাগানে পরবর্তী তিন বছর আর কোনো হরমোন স্প্রে করা যাবে না। যদি তা করা হয়, তাহলে দীর্ঘ মেয়াদে বাগান ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
বাজারে গত মাসের মাঝামাঝি সময় থেকেই আম আম রব। ক্রেতা যে আমেই হাত দিক না কেন দোকানি বলবে হিমসাগর নয়তো রাজশাহীর আম। ক্রেতা সতর্ক না বলে রঙে রূপে একই হওয়ায় দিব্যি গুটি আম চালিয়ে দেওয়া হচ্ছে হিমসাগরের নামে। অনেকসময় খুচরা বিক্রেতা নিজেই জানে না তিনি কোন আম বিক্রি করছেন। ...
রপ্তানি যোগ্য আম উৎপাদন করেও রপ্তানি করতে না পেরে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাগান মালিক ও ব্যবসায়ীরা। কৃষি অধিদপ্তরের কোয়ারেন্টাইন উইংয়ের সাথে স্থানীয় কৃষি বিভাগের সমন্বয়হীনতার কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে বলে মে করেন বাগান মালিক ও চাষিরা। অন্যদিকে জেলার ...
দেশেই তৈরি হচ্ছে ফ্রুটব্যাগ বাড়ছে চাহিদাদেশেই তৈরি হচ্ছে ফ্রুটব্যাগ বাড়ছে চাহিদা বিষমুক্ত ও ভালো মানের আম উৎপাদনে ফ্রুটব্যাগ পদ্ধতি বেশ কার্যকর। এত দিন আমদানিনির্ভর হলেও দুই বছর ধরে এটি দেশেই তৈরি হচ্ছে। আর এ ব্যাগ তৈরি হচ্ছে আম উৎপাদনের জন্য প্রসিদ্ধ জেলা ...
আমে ফরমালিন আর কার্বাইডের ব্যবহার নিয়ে দেশে যখন ব্যাপক হইচই হচ্ছে, এর নেতিবাচক প্রচারের অনেক ভোক্তা সুস্বাদু এই মৌসুমি ফল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। ব্যবসায়ীরাও মাঠে নেমেছেন কম। আমের বাজারে চলছে ব্যাপক মন্দা। এই সময়ে শাহ কৃষি জাদুঘর এবার ফরমালিন-কার্বাইড তো দূরের কথা, কোনো ...
বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে আছে বিভিন্ন বয়সী অনেক পুরনো গাছ। এর কোন কোনটি ২০০-৩০০ বছরেরও বেশি বয়সী। আবার কোনটির বয়স তার চেয়েও বেশি। তেমনই ঠাকুরগাঁওয়ের একটি আমগাছের কথা সেদিন জানতে পারলাম ফেসবুকে একজনের পোষ্ট থেকে। একটি আমগাছ যার বয়স নাকি ২০০ বছরেরও ...
নব্য জেএমবির বিভিন্ন সদস্যকে গ্রেপ্তার এবং সর্বশেষ সংগঠনের প্রধান আব্দুর রহমানের কাছ থেকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ নথিপত্র সংগ্রহ করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। প্রায় ১৯টির মতো সাংগঠনিক চিঠিও উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে ৯টি চিঠি পাঠিয়েছেন নিহত আব্দুর রহমান ওরফে ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২