Smart News - шаблон joomla Создание сайтов
  • Font size:
  • Decrease
  • Reset
  • Increase

দেশের আমে ফরমালিন নেই, ছিলও না : ডিসিসিআই

দেশে উৎপাদিত আমে কোনো ফরমালিন নেই। অতীতেও ছিল না। ফরমালিন সম্পর্কে না জেনে ভুল তথ্যকে ভিত্তি করে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এতদিন আম ধ্বংস করেছে। যার খেসারত দিতে হয়েছে ব্যবসায়ী ও নিরীহ চাষিদের বলে দাবি করেছে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই)। গতকাল বুধবার প্রতিষ্ঠানটির মিলনায়তনে ‘নিরাপদ আম বিপণনে নীতিনির্ধারণী পরিাবেশ’ শীর্ষক জাতীয় সংলাপ অনুষ্ঠানে এ দাবি করা হয়। অনুষ্ঠানে ইউএসএআইডি ও এগ্রিকালচার ভ্যালু চেইনের (এভিসি) যৌথ উদ্যোগে একটি গবেষণাপত্র উপস্থাপন করা হয়। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক

এম এ রহমান গবেষণাপত্রটি উপস্থাপন করেন। অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মুন্সি শফিউল হক বলেন, জনগণ ফরমালিন আছে বলে দাবি করেছিল তাই আম ধ্বংস করা হয়েছিল। সরকারতো জনগণেরই। তাই জনগণের দাবি রাখতে হয়েছে। সচিবের এমন দায়িত্বহীন মন্তব্যে গণমাধ্যম কর্মীদের তোপের মুখে পড়লে কথা পাল্টে তিনি বলেন, আম পাকাতে ফরমালিন দেওয়া হয় না। তবে অনেকদিন রাখার জন্য ফরমালিন দেওয়া হলেও তা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর না।

গবেষণায় দাবি করা হয়, বাংলাদেশে উৎপাদিত আমে কোনো প্রকার ফরমালিন মেশানো হয় না। আমের ভেতর প্রাকৃতিকভাবে ১.২২-৩.০৮ পিপিএম ফরমালিন থাকে। দেশের আইন প্রয়োগকারীরা সেটা না জেনে ফরমালিন আছে মনে করে হাজার হাজার টন আম নষ্ট করেছে। ফলে দেশের মানুষ এক প্রকার ভীতির মধ্যে ছিল। কৃষক থেকে ব্যবসায়ীরা আমের সাথে জড়িত সবাই লোকসান করেছে। রপ্তানিকারকরা বিদেশে আম রপ্তানি করতে পারেনি। অথচ বিষয়টি গুজব ছিল বলে প্রমাণিত হয়েছে। আর ফরমালিনের এই গুজব ছড়ানোর ব্যাপারে গণমাধ্যম কর্মীরাও ভূমিকা রেখেছিল। তারাও যাচাই না করেই গুজবে কান দিয়ে সংবাদ পরিবেশন করেছে। প্রশাসনের নেওয়া ব্যবস্থা নাকি গবেষণার তথ্য কোনটি সঠিক জানতে চাইলে অতিরিক্ত সচিব গবেষণার তথ্য সঠিক বলে মত দেন। গবেষণার তথ্য সঠিক হলে হাজার কোটি টাকার সম্পদ নষ্ট করার দায় কে নেবে এবং ব্যবসায়ী ও কৃষকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে তিনি প্রসঙ্গটি এড়িয়ে যান। বিপরীতে তিনি বলেন, নির্দিষ্ট সময়ে আম খেলে কেমিক্যালযুক্ত আম খাওয়ার সম্ভাবনা কমবে। তাই মে মাসের আগে আম না খাওয়ার জন্য তিনি পরামর্শ দেন। পরবর্তীতে তিনি আমাদের অর্থনীতির সাথে একান্ত আলাপে বলেন, আমে ফরমালিন এখনো দেওয়া হয়। তবে তা মাত্রায় খুব সামান্য। এটা স্বাস্থ্যের কোনো ক্ষতি করে না। সংলাপের সময় কেন তিনি একথা বলেননি জানতে চাইলে তিনি বলেন, সেখানে আম পাকানোর কথা বলা হয়েছিল। আম পাকাতে তো ফরমালিন দেওয়া হয় না।

Leave your comments

0
terms and condition.
  • No comments found
চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিখ্যাত ‘খিরসাপাত’ জাতের আম জিআই’ (ভৌগোলিক নির্দেশক) পণ্য হিসেবে নিবন্ধিত হতে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে গেজেট জারি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। নিবন্ধন পেলে সুস্বাদু জাতের এই আম ‘চাঁপাইনবাবগঞ্জের খিরসাপাত আম’ নামে বাংলাদেশসহ বিশ্ব বাজারে পরিচিতি লাভ করবে।  এই আমের ...
দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ থেকে চলতি মৌসুমে আম বিদেশে রপ্তানির লক্ষ্যে উপজেলার মাহমুদপুর ফলচাষী সমবায় সমিতি লিমিটেডের বাগানিরা আম বাগানের নিবিড় পরিচর্যা শুরু করেছে । উপজেলা কৃষি অধিপ্তরের সহায়তায় বিষ মুক্ত ও রপ্তানীযোগ্য আম উৎপাদনের জন্য তারা সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ও ফ্রুট ব্যাগিং ...
বাজারে আম সহ মাছ, ফল, সবজিসহ বিভিন্ন খাদ্য সংরক্ষণে যখন হরহামেশাই ব্যবহার হচ্ছে মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান ফরমালিন, ঠিক তখনই এর বিকল্প আবিষ্কার করেছেন বাংলাদেশের বিজ্ঞানী ড. মোবারক আহম্মদ খান। বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের প্রধান এই বৈজ্ঞানিক ...
আমে ফরমালিন আর কার্বাইডের ব্যবহার নিয়ে দেশে যখন ব্যাপক হইচই হচ্ছে, এর নেতিবাচক প্রচারের অনেক ভোক্তা সুস্বাদু এই মৌসুমি ফল থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন। ব্যবসায়ীরাও মাঠে নেমেছেন কম। আমের বাজারে চলছে ব্যাপক মন্দা। এই সময়ে শাহ কৃষি জাদুঘর এবার ফরমালিন-কার্বাইড তো দূরের কথা, কোনো ...
মৌসুমি ফল দিয়ে কর্তা ব্যক্তিদের খুশি করে স্বার্থ উদ্ধারের পদ্ধতি অনেক দিনের। বর্তমানে এই খুশি বিষয়টি আদায় করতে নগদ অর্থ খরচ করতে হলেও ফল থেরাপি ধরে রেখেছে অনেকেই। এর একটি হল মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের জন্য নিয়মিত ...
আম গাছ কে দেশের জাতীয় গাছ হিসেবে ঘোষনা দাওয়া হয়েছে। আর এরই প্রতিবাদে কিছুদিন আগে এক সম্মেলন হয়ে গেলো যেখানে বলা হয়েছে :-"৮৫% মমিন মুসলমানের দেশ বাংলাদেশ। ঈমান আকিদায় দুইন্নার কুন দেশেরথে পিছায় আছি?? আপনেরাই বলেন। অথচ জালিম সরকার ভারতের লগে ষড়যন্ত কইরা আমাগো ঈমানের লুঙ্গি ...

MangoNews24.Com

আমাদের সাথেই থাকুন

facebook ফেসবৃক

টৃইটার

Rssআর এস এস

E-mail ইমেইল করুন

phone+৮৮০১৭৮১৩৪৩২৭২